How To Get Smart Card

দেখুন কিভাবে স্মার্ট কার্ড পাবেন – How To Get Smart Card 2024

Smart Card আবেদন করেছেন ? এখনো স্মার্ট আইডি কার্ড পাননি ? স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো? আজকের পোস্টে আমরা জানবো কিভাবে আপনি আপনার Smart ID Card পাবেন। 

আপনি যদি পুরাতন ভোটার  হয়ে থাকেন তবে আপনার ১০ আঙ্গুলের ছাপ  এবং চোখ স্ক্যান করে এর বায়োমেট্রিক তথ্য প্রদান করলেই স্মার্ট আইডি কার্ড পেয়ে যাবেন। 

আবার যদি লেমিটানিং জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে থাকেন তবে আজকের পোস্টে দেখবেন স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো এবং কখন আইডি কার্ডটি পাবেন। 

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন থেকে এখন সকলকেই স্মার্ট আইডি কার্ড বিতরণ হচ্ছে। ২০২৫ সালের মধ্যেই সকল নাগরিককে স্মার্ট কার্ড  দেওয়া হবে। স্মার্ট কার্ড মূলত সকল নাগরিক সেবা আরো সহজ করার জন্য এবং ব্যক্তির পরিচয় সংরক্ষণের জন্য বিতরণ করা হয়। 

স্মার্ট কার্ডে থাকা সিম এর মতো চিপটিতে ব্যক্তির সকল তথ্য সংরক্ষিত থাকে। এই চিপে ব্যক্তির মোট ৩২ টি বায়োমেট্রিক তথ্য সহ অন্য সকল সনাক্তকারী তথ্য সংরক্ষিত থাকে। যা বিভিন্ন নাগরিক সেবাকে অনেক সহজ করেছে।  

স্মার্ট কার্ডের প্রয়োজনীয়তা

Smart NID Card হলো একজন নাগরিকের নাগরিকত্বের সর্বোচ প্রমান। NID Card ব্যক্তির মূল পরিচয় পত্র। দেশের যেকোনোকাজে অংশ গ্রহণ করতে হলে এই কার্ডের প্রয়োজন হয়। 

প্রতিটি সরকারি বা বেসরকারি কাজে যোগ দেওয়ার আগে ব্যক্তির পরিচয় হিসেবে এই কার্ড চেক করা হয়। তাছাড়া বিভিন্ন গুরুত্ত্বপূর্ণ ডকুমেন্টন্স তৈরীর ক্ষেত্রেও ব্যক্তির সকল তথ্য এনআইডি কার্ড থেকে নেওয়া হয়। 

Smart ID Card ( Source - unb.com.bd )
Smart ID Card ( Source – unb.com.bd )

ব্যক্তির পাসপোর্ট আবেদন, ড্রাইভিং লাইসেন্স, নতুন ব্যাংক একাউন্ট থেকে শুরু করে সকল অফিসিয়াল কাজে স্মার্ট এনআইডি কার্ড প্রয়োজন হয়। যোগাযোগের জন্য নতুন সিম ক্রয় করার জন্যও স্মার্ট এনআইডি কার্ড লাগে। 

স্মার্ট আইডি কার্ডের কোনো তথ্য ভুল থাকলে পরবর্তীতে করা অন্য সকল ডকুমেন্টসে তথ্য ভুল আসবে। এজন্য আমাদের উচিৎ Smart ID Card এ কোনো তথ্য ভুল থাকলে তা যত দ্রুত সম্ভব সংশোধন করে ফেলা। তবে স্মার্ট কার্ড এখনো না পেয়ে থাকলে প্রথমে জানতে হবে স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো এবং কবে পাবো।

কিভাবে স্মার্ট আইডি কার্ড সংশোধন করবেন তা জানা নাও থাকতে পারে। এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে আরো পড়তে পারেন – NID Card Correction Online 2024

আরও পড়ুন  Smart NID Status Check 2024 - অনলাইন থেকে জাতীয় পরিচয় পত্র যাচাই

স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো

ব্যক্তির স্মার্ট আইডি কার্ড প্রস্তুত হলে তা আবেদনকারীর সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আবেদনকারীকে স্মার্ট কার্ড প্রস্তুত হলে জানিয়ে দেওয়া হয়। অথবা আবেদনকারী নিজ থেকে অনলাইনে বা SMS এর মাধ্যমে স্মার্ট  কার্ড স্ট্যাটাস চেক করে জেনে নিতে পারে যে স্মার্ট কার্ড প্রস্তুত  হয়েছে কিনা। 

স্মার্ট কার্ড প্রস্তুত হলে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন কমিশনের অফিস থেকে তা সংগ্রহ করতে হয়। তবে আপনি যদি ২০১৯ সালের আগের ভোটার হয়ে থাকেন তবে এখনো স্মার্ট কার্ড নাও পেতে পারেন। 

২০১৯ সালের আগে যারা ভোটার নিবন্ধন করেছেন তারা লেমিনেটিং করা আইডি কার্ড ব্যবহার করে। স্মার্ট আইডি কার্ড পেতে হলে সকল প্রয়োজনীয় বায়োমেট্রিক তথ্য যেমন ১০ আঙ্গুলের চাপ, চোখ স্ক্যান ইত্যাদি নতুন করে করতে হবে। 

স্মার্ট আইডি কার্ড বিতরণ একটি ব্যয়বহুল কাজ কাজ। এজন্য একজন একজন করে কার্ড বিতরণ না করে উপেজলা বা জেলা করে কার্ড বিতরণ করা হয়। এজন্য কার্ড পেতে একটু সময় লাগতে পারে। তবে যদি এখনই কার্ডের কোনো তথ্য যাচাই করার প্রয়োজন হয় তবে অনলাইন থেকে কার্ড ডাউনলোড দিয়ে নিতে পারেন। 

কিভাবে অনলাইন থেকে স্মার্ট আইডি কার্ড ডাউনলোড করবেন তা জানা নাও থাকতে পারে। এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে আরো পড়তে পারেন – How To Download NID Card

Smart NID Card কখন পাবেন চেক করুন 

এখনো অনেকেই স্মার্ট আইডি কার্ড পাননি। যারা আইডি কার্ড পাননি তারা পরবর্তী স্মার্ট কার্ড বিতরণ এর সময় কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন। আবার স্মার্ট কার্ড প্রস্তুত হলেও না পেলে উপজেলা নির্বাচন কমিশনের অফিস থেকে কার্ড সংগ্রহ করতে হবে। 

আপনার স্মার্ট আইডি কার্ড প্রস্তুত হয়েছে কিনা এবং প্রস্তুত হলেও কখন বা কিভাবে পাবেন তা স্মার্ট কার্ড স্ট্যাটাস চেক করে জানা যায়। স্মার্ট এনআইডি কার্ড দুই ভাবে চেক করা যায় –

  • NID Form নাম্বার দিয়ে অনলাইনে স্মার্ট কার্ড চেক 
  • মোবাইল SMS এর মাধ্যমে স্মার্ট কার্ড চেক 

নিম্নে কিভাবে স্মার্ট আইডি কার্ড চেক করবেন বিস্তারিত আলোচনা করা হলো – 

ফর্ম নাম্বার দিয়ে অনলাইনে স্মার্ট কার্ড চেক  

চলুন এখন জেনে নেওয়া যাক আপনি কিভাবে আপনার ফর্ম নাম্বার দিয়ে NID কার্ড চেক করতে পারেন। এটি চেক করার জন্য আপনার প্রথমে একটি ফর্ম লাগবে যেটায় আপনার ফর্ম নাম্বার থাকবে। নিচে দেওয়া ধাপ গুলো অনুসরণ করলে আপনি খুব সহজেই ফর্ম এর মাধ্যমে আপনার ভোটার আইডি কার্ডটি ভেরিফাই করতে পারবেন।

  • আপনাকে প্রথমে NID Website ভিজিট করে Registration অপশনে ক্লিক করতে হবে
আরও পড়ুন  NID কার্ডের সাক্ষর এবং ছবি পরিবর্তন 2024
services.nidw.gov.bd
services.nidw.gov.bd
  • এরপর আপনাকে ফর্ম নাম্বার ও জন্ম তারিখ লিখতে হবে। Form Number এর শুরুতে NIDFN লিখুন। উদাহরণ-NIDFN123456789;
  • এরপর আপনাকে ক্যাপচা পূরণ করে সাবমিট এ ক্লিক করতে হবে;
  • NID প্রস্তুত হলে আপনার কাছে ঠিকানা সিলেক্ট করার অপশন আসবে।
  • ঠিকানা দিয়ে ও ফেইস ভেরিফিকেশন করে আইডি কার্ড চেক করুন।

আপনার কাছে যদি ফর্ম নাম্বার নাও থেকে থাকে তাহলেও কিন্তু আপনি বেশ কিছু মাধ্যমে এটি ভেরিফাই করতে পারবেন। আমরা একটি পোস্ট শীঘ্রই পাবলিশ করব যেখানে আমরা এটি নিয়ে বিস্তারিত আলাপ করব আপনি কিভাবে ফর্ম নাম্বার ছাড়াই এন আই ডি কার্ড ভেরিফাই করতে পারবেন। 

SMS এর মাধ্যমে নতুন ভোটার আইডি চেক

যারা নতুন ভোটার নিবন্ধন করেছেন  কিন্তু এখনো এনআইডি নাম্বার পাননি তারা এখন খুব সহজে এসএমএস এর মাধ্যমে মোবাইলেও এনআইডি কার্ড দেকতে এবং চেক করতে পারবেন ।এভাবে আপনি আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার জেনে নিতে পারেন বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করতে পারেন। 

SMS এর মাধমে স্মার্ট কার্ড চেক
SMS এর মাধমে স্মার্ট কার্ড চেক

এসএমএস এর মাধ্যমে নতুন জাতীয় পরিচয় পত্র ( NID ) চেক করা খুবই সহজ।  প্রথমে মোবাইলে মেসেজ অপশন থেকে NID স্পেস Form Number স্পেস DD-MM-YYYY লিখে 105 নম্বরে একটি মেসেজ Send করুন। এরপর আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র ( NID ) প্রস্তুত  হলে ফিরতি এসএমএস এ আপনার  জাতীয় পরিচয় পত্র ( NID ) নাম্বার জানিয়ে দেওয়া হবে।

নাম্বার চেক করার জন্য এসএমএস ফর্মেট নিম্নরুপ :-

NID<Space>FORM NO<Space>DD-MM-YYYY

এভাবে সরাসরি অনলাইন থেকে আপনার ভোটার স্লিপ নম্বর বা ফর্ম নম্বর দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র নম্বর বের করতে ও জাতীয় পরিচয় পত্র ডাউনলোড করতে পারবেন।

SMS এর মাধমে স্মার্ট কার্ড চেক
SMS এর মাধমে স্মার্ট কার্ড চেক

NID স্লিপে শুধু ৮ সংখ্যার নাম্বার থাকে ( NIDFN87654321 01-01-1900 )। অনেক সময় এই ফর্ম নাম্বার ব্যবহার করলে ফিরতি মেসেজ আসেনা বা আসলেও কোন তথ্য পাওয়া যায় না। তাই সবচেয়ে ভালো হলো ফর্ম নাম্বারের আগে NIDFN যুক্ত করে মেসেজ পাঠানো।

SMS এর মাধমে স্মার্ট কার্ড চেক
SMS এর মাধমে স্মার্ট কার্ড চেক

যারা এখনো স্মার্ট আইডি কার্ড হাতে পাননি তারা পরবর্তী স্মার্ট কার্ড বিতরণ কর্মসূচিতে স্মার্ট কার্ড পাবেন। আর যদি কোনো কারণে আপনার স্মার্ট কার্ড তৈরি হওয়া সত্ত্বে গ্রহণ করতে না পারেন তাহলে উপজেলা নির্বাচন কমিশন অফিস থেকে স্মার্ট আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন।

আরও পড়ুন  Services Nidw Gov BD - NID বিষয়ক সকল সেবা যেভাবে পাবেন

শেষ কথা 

আশা করি আজকের পোস্টটি আপনার কাছে ভালো লেগেছে। আজকের পোস্টে আমরা আলোচনা করেছি, আপনি কিভাবে অনলাইন  এর সাহায্যে ঘরে বসেই আপনার Smart NID Card চেক করতে পারেন। আমরা  সঠিক এবং সব থেকে সহজ উপায় সম্পর্কে আলোচনা করেছি যেগুলো আপনাকে সহজেই অনলাইনে Smart NID Card চেক সাহায্য করবে। 

আপনি যদি  NID card সম্পর্কে আরো পোস্ট পড়তে চান তাহলে আপনি আমাদের ওয়েবসাইটটি বুক মার্ক করে রাখতে পারেন এবং আপনি আপনার মূল্যবান মতামতটি আমাদের সাথে কমেন্টে শেয়ার করতে পারেন।

FAQ’s  

স্মার্ট কার্ড সংগ্রহ করে কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন হয় ?

Smart Card সংগ্রহ করার জন্য আইডি কার্ডের আবেদন জমা দেওয়ার সময় যে ভোটার স্লিপ টি দেওয়া হয়েছিল সেট প্রয়োজন হবে। 

একজন এর Smart ID Card অন্য কেও সংগ্রহ করতে পারবে ? 

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন থেকে জানা যাই একজনের এনআইডি কার্ড অন্য কেও সংগ্রহ করতে পারবে না। ব্যক্তিকে স্বশরীরে যেয়ে আইডি কার্ডটি সংগ্রহ করতে হবে। 

Smart ID Card সংগ্রহ করতে কি আলাদা কোনো ফি প্রদান করা লাগে ?

জি না। আইডি কার্ড সংশোধন করার জন্য আলাদা কোনো ফি প্রদান করতে হয় না। 

অনলাইনে Smart NID Card চেক করতে আলাদা ফি প্রদান করতে হয় ?

জি না। অনলাইন জাতীয় পরিচয় পত্র অর্থাৎ Smart NID Card চেক করতে আলাদা কোনো ফি প্রদান করতে হয় না। 

Smart NID Card সংশোধন করতে কি কি ডকুমেন্টন্স প্রয়োজন হয় ?

সাধারণভাবে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করার জন্য শিক্ষা সার্টিফিকেট বা সনদ, ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন কপি, ড্রাইভিং লাইসেন্স বা পাসপোর্ট এর প্রয়োজন হয়।

এছাড়া কার্ড এর ঠিকানা সংশোধন করার ক্ষেত্রে আপনার নাগরিকত্বের সনদ, জন্ম নিবন্ধনের কপি, ইউটিলিটি বিল এর কপি যেমন বিদ্যুৎ বিল বা পানির বিল, এবং জমির পর্চার কপি প্রয়োজন হয়।

NID Card সংশোধন করতে কত দিন সময় লাগে ?

কত সময় লাগবে তা কি তথ্য সংশোধন করেছেন এবং আবেদনের ধরণের উপর নির্ভর করে। অনলাইনে NID Card সংশোধন করার ক্ষেত্রে আবেদন সঠিক ভাবে করলে এবং উপযুক্ত প্রমাণপত্র প্রদান করতে পারলে ১৫-৩০ দিনের মধ্যেও আবেদন অনুমোদন হয়ে যেতে পারে। 

NID Card সংশোধন ফি কত ?  

প্রথমবার ভোটার আইডি কার্ড সংশোধনের ক্ষেত্রে আবেদন ফি মোট ২৩০ টাকা। এখানে ফি ২০০ টাকা এবং ১৫% ভ্যাট সহ মোট ফি ২৩০ টাকা। দ্বিতীয়বার আইডি কার্ড সংশোধনের ক্ষেত্রে ফি ৩০০ টাকা এবং ১৫% ভ্যাট সহ ফি মোট ৩৪৫ টাকা।

দ্বিতীয়বার আবেদনের পর আবার যতবার আবেদন করবেন প্রত্যেকবার ভ্যাট সহ মোট ৫৭৫ টাকা ফি প্রদান করতে হবে। 

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।